অন্যান্য

প্রশ্ন: সিসা, হুক্কা, বিড়ি-সিগারেট, গুল, জর্দা ইত্যাদি গ্রহণ করার হুকুম কি?

উত্তর: ইসলামে ধুমপান ও সকল প্রকার নেশাদ্রব্য হারাম। আমাদের সমাজে ধুমপানের বিভিন্ন পদ্ধতি চালু রয়েছে।
যেমন বিড়ি, সিগারেট, সিসা, হুক্কা ইত্যাদি।

অনুরূপভাবে মানুষ বিভিন্নবাবে গুল, জর্দা, তামাক ইত্যাদি সেবন করে থাকে। এগুলো সব নেশাদ্রব্য। সে কারণে এগুলো সেবন করা হারাম।
কেননা, বৈজ্ঞানিকভাবে এগুলো মানব দেহের জন্য মরাত্মক ক্ষতিকারক হিসেবে প্রমাণিত।

বিশেষজ্ঞগণ বলেন, সাধারণ বিড়ি-সিগারেটের চেয়ে সিসা বেশি ক্ষতিকর। সিসার ছোবলে বাড়ছে মরণব্যাধি ক্যান্সার।
তারা এটাও বলছেন যে, একবার সিসা সেবন করলে তা ২০০টি সিগারেট পানের চেয়েও বেশি ক্ষতি বয়ে আনে।

এবার আসুন, জিনে নি কী কী কারণে ইসলামে ধুমপান হারাম।

* যে সব কারণে ধুমপান হারাম: *

১) ধুমপান স্বাস্থের জন্য ক্ষতি কারক ও বিভিন্ন রোগের কারণ। সুতরাং ধুমপান সেবন করা নিজেকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেয়ার নামান্তর।
অথবা ইসলামে নিজেকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেয়া হারাম। (সূরা বাকারা: ১৯৫)

২) এটি মৃত্যুর অন্যতম একটি কারণ। সুতরাং ধুমপান আত্মহত্যার শামিল। আর ইসলামে আত্মহত্যা করা মারাত্মক অপরাধ।

৩) এর মাধ্যমে ধুমপায়ী নিজের যেমন ক্ষতি করে অন্যের ক্ষতি করে।
ইসলামে নিজের বা অন্যের ক্ষতি করা হারাম। (মুয়াত্তা মালিক)

৪) দূর্গন্ধময়। যা অন্যের কষ্টের কারণ। কোন মুসলমানকে কষ্ট দেয়া হারাম। (সূরা আহযাব: ৯৮)

৫) অর্থ অপচয়। “অর্থ অপচয়কারী শয়তানের ভাই।” (সূরা ইসরা: ২৭)

৬) এটি একটি নাপাক বস্তু। আল্লাহ তায়ালা নাপাক জিনিস ভক্ষণ করতে নিষেধ করেছেন। (আরাফ: ১৫৭)

৭) এটি একটি প্রকাশ্য পাপ। আর প্রকাশ্যে পাপাচার করার শাস্তি আরও বেশী।

৮) আল্লাহ নির্দেশের লঙ্ঘণ। কেননা, আল্লাহ তায়ালা পবিত্র ও হালাল জিনিস
ভক্ষণ করতে আদেশ করেছেন। (সূরা বাকারা: ১৭২)

৯) তামাক নেশা দ্রব্যের অন্তর্ভূক্ত। কম হোক বা বেশী হোক সকল প্রকার নেশা দ্রব্য ইসলামে হারাম। (তিরমিযী, আবুদাউদ, ইবনে মাজাহ)


গ্রন্থনায়: আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সউদী আরব

➥ লিংকটি কপি অথবা প্রিন্ট করে শেয়ার করুন:
পুরোটা দেখুন

এই বিষয়ের সাথে সম্পর্কিত অন্যান্য লিখা

Back to top button